হিন্দু ব্যক্তির সৎকার করলেন মুসলিম কাউন্সিলর

করোনাভাইরাসের আতঙ্কে একদিকে দূরে সরে যাচ্ছেন আপনজন, অন্যদিকে ধর্ম-বর্ণের ভেদাভেদ ভুলে মিলেমিশে একাকার হচ্ছেন মানুষ।

বৈশ্বিক এই মাহামারির কারণে মানুষের এমন নিদর্শন পাওয়া গেছে পৃথিবীর বেশ কয়েকটি দেশে। এবার একটি দৃষ্টান্ত পাওয়া গেল বাংলাদেশেও।

বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা সদরের চরহোগলা গ্রামে আজ শুক্রবার সকালে বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যান এলাকার বাসিন্দা ভূবেশ ভক্ত (৬২) নামে এক ব্যক্তি।

করোনাভাইরাসের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে-এমন সন্দেহে তার পরিবারের কয়েকজন সদস্য ও আত্মীয়-স্বজন পালিয়ে যান। ফলে লাশের সৎকার নিয়ে বিপাকে পড়েন ভূবেশের ছেলে মলিন ভক্ত।

খবর পেয়ে দুপুরে মলিনের বাড়ি আসেন সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মোতালেব জাহাঙ্গীর। ঘর থেকে মরদেহ নিজ কাঁধে বের করে শ্মশানে নিয়ে যান তিনি।

সেখানে লাশের সৎকারও করেন তিনি। এতে যে ব্যয় হয়েছে সেটিও বহণ করেন জাহাঙ্গীর।

ভূবেশের ছেলে মলিন ভক্ত আমাদের সময়কে জানান, পরিবারের অন্য সদস্যসহ তাদের আত্মীয়-স্বজন ভাবেন, করোনাভাইরাসের কারণে তার বাবার মৃত্যু হয়েছে।

এ কারণে তারা পালিয়ে যান। একবারের জন্য লাশটি দেখতেও আসেননি। সৎকারের সময়ও তারা ছিলেন না। তিনি বলেন, ‘কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর নিজে কাঁধে করে আমার বাবার লাশ বহণ করেছেন। উপস্থিত থেকে তার সৎকার ও এর খরচ করেছেন।’

এর আগেও ওয়ার্ডের প্রায় কয়েকশ পরিবারকে সহায়তা দিয়েছেন কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর। করোনা পরিস্থিতিতেও তিনি সাধ্যমতো ক্ষতিগ্রস্থদের সাহায্য করছেন বলে জানান স্থানীয়রা।

ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মোতালেব জাহাঙ্গীর আমাদের সময়কে বলেন, ‘একজন মৃত বৃদ্ধের লাশ মানুষের অভাবে সৎকার হবে না, এটাতো হতে পারে না।

সে কোন ধর্মের-গোত্রের তা আমার আমার কাছে বড় নয়। মৃত ব্যক্তি যে ধর্মের তাকে সেই ধর্মের নিয়ম-কানুন মেনেই শেষ বিদায় জানানো উচিত বলে আমি মনে করি।’

dainikamadershomoy

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *