ওমিক্রন: কী বলছে ফাইজার-বায়োএনটেক- মডার্না, বিস্তারিত জেনে নিন

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের বিরুদ্ধে বাজারে ব্যবহৃত টিকা আদৌ কার্যকর কি না তা নিয়ে চলছে গবেষণা।

তবে বর্তমান টিকা ওমিক্রন প্রতিরোধী না হলে ১০০ দিনের মধ্যে ভ্যাকসিনের নতুন ভার্সন বের করার ঘোষণা দিয়েছে ফাইজার ও বায়োএনটেক।

অন্যদিকে, নতুন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে বুস্টার ডোজ বানানোর ঘোষণা দিয়েছে মডার্না। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে জনসন অ্যান্ড জনসনও।

করোনার ধাক্কা সামলে বিশ্ব যখন স্বাভাবিকের পথে হাঁটছে তখন আবারো উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে কোভিডের নতুন ধরন ওমিক্রন।

গবেষকরা বলছেন, এটি ডেল্টার চেয়ে বেশি ভয়াবহ ও সংক্রামক। তাই স্বাভাবিকভাবেই বর্তমানে বাজারে থাকা করোনার টিকা ওমিক্রনের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেবে কি না সে নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে সাধারণ মানুষের মাঝে।
এরইমধ্যে ওমিক্রনের বিরুদ্ধে কোভিড কার্যকারিতা পরীক্ষায় গবেষণা শুরু হয়েছে। বর্তমানে ফাইজার বায়োএনটেকের যে টিকা রয়েছে সেটি ওমিক্রনের বিরুদ্ধে কাজ না করলে আগামী ১০০ দিনের মধ্যে টিকা হালনাগাদ করার যৌথ ঘোষণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠান দুটি।

দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত হওয়া ওমিক্রন মোকাবিলায় টিকায় কোনো পরিবর্তন প্রয়োজন আছে কি না কিন ফল দুই সপ্তাহের মধ্যেই পাওয়ার আশা করছে ফাইজার।

ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে বিশ্বজুড়ে তুমুল উদ্বেগের মধ্যেই এক বিবৃতিতে ফাইজার বায়োএনটেক আরও জানায়, প্রয়োজন অনুযায়ী ১০০ দিনের মধ্যে নতুন ভ্যারিয়েন্ট উপযোগী টিকা বানিয়ে তা সরবরাহও শুরু করতে পারবে তারা।

এরই মধ্যে আলফা ও ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের উপযোগী টিকার সংস্করণ বানিয়েছে ফাইজার ও বায়োএনটেক। যেগুলো বর্তমানে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে রয়েছে।

বসে নেই আরেক টিকা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান মডার্নাও। এরইমধ্যে নতুন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে কার্যকর বুস্টার ডোজ বানানোর কাজ শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে নতুন টিকা আনা হবে বলে জানিয়েছে জনসন অ্যান্ড জনসনও

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *