টেকো বা টাক বলে ডাকা যৌন হয়রানির শামিল!

মাথায় চুল না থাকায় পুরুষদের ‘টেকো’ বলে ডাকা যৌন হয়রানির শামিল বলে রায় দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের একটি আদালত।

নারীদের চেয়ে পুরুষদের মাথায় চুল না থাকার সমস্যা বেশি থাকায়, এ নিয়ে মন্তব্য করার মধ্যে লিঙ্গবৈষম্য রয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

এমনকি, পুরুষদের টাক নিয়ে মন্তব্য করা আর নারীদের স্তন সম্পর্কে কথা বলা সমান বলে রায় দিয়েছেন আদালত। খবর দ্য গার্ডিয়ানের।

সম্প্রতি টনি ফিন নামে একজন ইলেকট্রিক কারিগরের আনা অভিযোগের ভিত্তিতে এমন রায় দিয়েছে ব্রিটেনের কর্মচারী নিয়োগ ট্রাইব্যুনাল।

পশ্চিম ইয়র্কশায়ারের ব্রিটিশ বুং কোম্পানিতে দীর্ঘ ২৪ বছর ধরে কাজ করেছেন টনি। ২০২১ সালের মে মাসে তাকে ছাঁটাই করা হয়। এরপরই আদালতে মামলা করেন তিনি।

টনি ফিনের অভিযোগ, ২০১৯ সালে কর্মক্ষেত্রে তর্কাতর্কির সময় তাকে একাধিকবার ‘টেকো’ বলে ডেকেছিলেন ওই কারখানার সুপারভাইজার জেমি কিং। এতে অপমানিত বোধ করেন টনি এবং পরে আদালতের দ্বারস্থ হন।

বিচারক জোনাথন ব্রেইনের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল রায় ঘোষণার সময় জানান।

সহকর্মীর টাক নিয়ে মন্তব্য করা একজন নারীর স্তনের আকার নিয়ে কথা বলার সমতুল্য। তাই এ ধরনের যে কোনও মন্তব্য যৌন হেনস্তার সামিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *