মিসরের প্রখ্যাত আলেম ড. আহমদ ত্বহা রাইয়ান আল মালিকী ইন্তেকাল করেছেন

বর্তমান বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ফকীহ আল্লামা ড. আহমদ ত্বহা রাইয়ান আল মালিকী রহিমাহুল্লাহ ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। স্থানীয় সময় বুধবার তিনি ইন্তেকাল করেন।

চার মাযহাবের যে চারজন ফকিহ আছেন তাদের একজন আল্লামা ড. আহমদ ত্বহা রাইয়ান আল মালিকী রহিমাহুল্লাহ। তিনি ছিলেন বর্তমান বিশ্বে মালেকি মাযহাবের শ্রেষ্ঠ ফকিহ। এছাড়া অন্যান্য মাযহাবের শাইখরা হলেন, হানাফী মাযহাবের শাইখ, ড. জামালুদ্দীন হাশেম হাফিজাহুল্লাহ, শাফেঈ মাযহাবের শাইখ ড. আবদুল আযীয আশ শাহাভী হাফিজাহুল্লাহ এবং হাম্বলি মাযহাবের শাইখ ড. মুহাম্মাদ সাইয়িদ মুস্তাফা হাফিজাহুল্লাহ।

জানা যায়, স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সকালে লাক্সার গভর্নরের পশ্চিমে কুরনা শহরে শত শত লোকের উপস্থিতিতে কাবিলি কামুলা অঞ্চলের নাগা আল-বারাকা কবরস্থানে মালেকি শাইখ ড. আহমদ ত্বহা রাইয়ান আল মালিকী রহিমাহুল্লাহর দাফন সম্পন্ন হয়।

বর্তমান করোনা পরিস্থিতি উপেক্ষা করে আল-আজহারের কয়েক শতাধিক শাইখ ও শিক্ষার্থী, ড. আহমদ ত্বহা রাইয়ান আল মালিকী রহিমাহুল্লাহ’র জানাযায় উপস্থিত ছিলেন। জানাযা পড়িয়েছিলেন আল আজহারের সিনিয়র স্কলার্স কাউন্সিলের সদস্য ড. মুহাম্মদ আল-দাওয়াইনি। উপস্থিত ছিলেন আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেসিডেন্ট ড. মুহাম্মদ। জানাজার নামাজের সমাপ্তির পরে দাফনের জন্য তার লাশ পারিবারিক কবরস্থানে নিয়ে যাওয়া হয়।

এদিকে ড. আহমদ ত্বহা রাইয়ান আল মালিকী রহিমাহুল্লাহ’র মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন গ্র্যান্ড ইমাম ড. আহমদ আল-তায়েব। এছাড়া শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন আল আজহার বিশ্ব বিদ্যালয়ের সিনিয়র স্কলারস কাউন্সিলের সদস্যবৃন্দ।

প্রসঙ্গত, ড. আহমদ ত্বহা রাইয়ান আল মালিকী রহিমাহুল্লাহ’র জন্ম ১০ ফেব্রুয়ারি ১৯৩৯ খ্রিষ্টাব্দে। তিনি শরিয়া ও আইন কলেজ কায়রোয থেকে ইন্টার শেষ করেন ১৯৬৬ খ্রিষ্টাব্দে। তারপর তিনি মাস্টার্স ডিগ্রী লাভ করেন ১৯৬৪ খ্রিষ্টাব্দে। ১৯৭৩ সালে লাভ করেন ডক্টরেট ডিগ্রি।

তিনি ১৯৭৮ খ্রিষ্টাব্দে শিক্ষকতার জীবন শুরু করেন। এরপর পর্যায়ক্রমে ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দে সহকারী অধ্যাপক, ১৯৮৫ সালে অধ্যাপক, ২০০৪ সালে একজন পূর্ণকালীন অধ্যাপকে পদোন্নতি পান।

ড. আহমদ ত্বহা রাইয়ান আল মালিকী রহিমাহুল্লাহ বাংলাদেশসহ মুসলিম বিশ্বের বেশকিছু দেশ ভ্রমণ করেন। এর মধ্যে রয়েছে সৌদি আরব, জর্ডান, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাংলাদেশ এবং উজবেকিস্তান। এছাড়া তিনি ভ্রমণ করেন, ডেনমার্ক, ব্রিটেন , কানাডা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *