আজানের ধ্বনিই পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সুর

আল্লাহ তাআলা মনোনীত সর্বশ্রেষ্ঠ জীবন ব্যবস্থার নাম ইসলাম। এ জীবন ব্যবস্থা মানুষকে সব সময় কল্যাণের দিকে আহ্বান করে।

মসজিদের মিনার থেকে মুয়াজ্জিন প্রতিদিন পাঁচবার সুললিত কণ্ঠে কল্যাণের দিকে ধাবিত হওয়ার সে আহ্বানই জানায়।

সুমধুর এ আহ্বানই হচ্ছে আজান। মহাকবি কায়কোবাদ কবিতায় ছন্দে তা তুলে ধরেছেন এভাবে-
‘কে ওই শোনাল মোরে আযানের ধ্বনি। মর্মে মর্মে সেই সুর, বাজিল কি সুমধুর আকুল হইল প্রাণ, নাচিল ধমনী।

কি মধুর আযানের ধ্বনি! আমি তো পাগল হয়ে সে মধুর তানে, কি যে এক আকর্ষণে, ছুটে যাই মুগ্ধমনে কি নিশীথে, কি দিবসে মসজিদের পানে।’

মনোমুগ্ধকর আজানের বাণী মানুষকে নিয়ে যায় সফলতার দিকে; মহান সত্তা আল্লাহর সাক্ষাৎ পেতে; ধনী-গরীব, সাদা-কালো, উচু-নিচু, কৃষক- শ্রমিক সবাইকে নিয়ে আসে এক কাতারে। সেখানে থাকে না কোনো ভেদাভেদ।

সবাই কাঁধে-কাঁধ মিলিয়ে এক কাতারে শামিল হয়। মহান রবের কৃতজ্ঞতায় শির নিচু করে সেজদায় অবনত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *